ঢাকা মঙ্গলবার, ২১শে মে ২০২৪, ৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সমুদ্রের গভীরে নতুন বাস্তুসংস্থানের সন্ধান


প্রকাশিত:
১৩ আগস্ট ২০২৩ ২১:১২

আপডেট:
২১ মে ২০২৪ ১৬:৫৩


কল্পবিজ্ঞান লেখক জুলভার্নের ‘জার্নি টু দ্য সেন্টার অব আর্থ’ উপন্যাসে কয়েক জন অভিযাত্রী হারিয়ে গেছে বলে মনে করা হতো এমন সব প্রাণীর আশ্চর্য এক জগতের সন্ধান পান পাতালে। তেমনি বলা যায় স্যার আর্থার কোনান ডয়েলের লস্ট ওয়ার্ল্ড বইটির কোথাও, যেখানে দক্ষিণ আমেরিকার গহিন অরণ্যে ডাইনোসরসহ আশ্চর্য সব বন্যপ্রাণীর খোঁজ পেয়ে যান খেয়ালি বিজ্ঞানী প্রফেসর চ্যালেঞ্জার ও তাঁর সঙ্গীরা। তবে বাস্তবেও কখনো কখনো কল্পকাহিনির মতো রোমাঞ্চকর ঘটনা ঘটে! যেমন সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা গভীর সমুদ্রে লুকিয়ে থাকা একটি সম্পূর্ণ নতুন বাস্তুসংস্থান খুঁজে পেয়েছেন।

পেঁয়াজের যতই খোসা ছাড়ান না কেন মনে হবে এর স্তরের কোনো শেষ নেই। অনেকটা সেভাবেই পৃথিবীর বুকে নতুন নতুন জায়গায় প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজে বের করছেন বিজ্ঞানীরা।

অতি সম্প্রতি, শ্মিডট ওশান ইনস্টিটিউটের একটি জাহাজ থেকে গভীর, অন্ধকার প্রশান্ত মহাসাগরে আগ্নেয়গিরির ভূত্বকের ভেতরে অনুসন্ধান চালানোর জন্য একটি ডুবো রোবট বা দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় এমন একটি যন্ত্র পাঠানো হয়। আর এতেই আগেই ভালোভাবে অনুসন্ধান চালানো এলাকাটির সমুদ্রতলের নিচে এমন জায়গায় প্রাণের অস্তিত্বের খোঁজ মেলেছে, যা সম্পর্কে আগে থেকে ধারণাই ছিল না বিজ্ঞানীদের।

এক কথায় বিজ্ঞানীরা সাগরপৃষ্ঠের নিচে মোটামুটি নতুন এক পৃথিবীর সন্ধান পেয়ে গেছেন! আর এ তথ্য জানা গেছে বিজ্ঞান সাময়িকী সায়েন্স অ্যালার্টের সৌজন্যে।

ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক জ্যোতিকা বিরমানি বলেন, ‘আমরা আগে থেকেই পাতালগুহায় বা ভূগর্ভস্থ গহ্বরে এবং সাগরের বালি ও কাদায় প্রাণীদের বসবাসের কথা জেনেছি। কিন্তু প্রথমবারের মতো, বিজ্ঞানীরা হাইড্রোথার্মাল ভেন্ট বা সাগরতলের চিড় বা ফাটলের নিচে প্রাণীদের বসবাসের সন্ধান পেয়েছেন।’

‘একটি নতুন বাস্তুসংস্থান খুঁজে পাওয়া সত্যিই অসাধারণ আবিষ্কার। যেটি আবার লুকানো ছিল অন্য একটি বাস্তুসংস্থানের নিচে। এটা প্রমাণ করে অবিশ্বাস্য জায়গায়ও থাকতে পারে জীবনের অস্তিত্ব।’

১৯৭০-র দশকে বিজ্ঞানীরা শুধুমাত্র সাগরের তলের হাইড্রোথার্মাল ভেন্ট বা ফাটলগুলো আবিষ্কার করেছিলেন। গভীর সমুদ্রে এই ফাটলগুলো দিয়ে গরম, খনিজ সমৃদ্ধ তরল প্রবাহিত হয়। গভীরতার অন্ধকারময় এক জগৎ হওয়া সত্ত্বেও এই ধোঁয়াটে, চিমনি-সদৃশ গর্তের চারপাশে প্রাণের সমাগম নজর কাড়ে। তবে গত ৪৬ বছরেও কোনো গবেষক সাগর তলের এই উষ্ণ প্রস্রবণের নিচে উঁকি দেওয়ার কথা ভাবেননি। আর সাগর পৃষ্ঠের ফাটলের এই অনুসন্ধানে শামুক, কৃমির মতো প্রাণী, ব্যাকটেরিয়াসহ এমন সব প্রাণের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে যারা শক্তির জন্য সূর্যের আলো নয় বরং খনিজের ওপর নির্ভরশীল।

ইউনিভার্সিটি অব ভিয়েনার ইকোলজিস্ট মনিকা ব্রাইট, ‘এই আবিষ্কারের মাধ্যমে গভীর সাগরের এসব ফাটলের মাধ্যমে প্রাণের অস্তিত্ব সম্পর্কে আমাদের অনেক বেড়ে গেল। তার মানে এ ধরনের ফাটল বা চিড়কে ঘিরে দুই ধরনের বসতি সম্পর্কে এখন নিশ্চিত হওয়া গেল। সাগর পৃষ্ঠের ওপরের এবং নিচের চিড়ের প্রাণীরা মিলেমিশে ঘুরে বেড়ায়। এটা অনেকটা নির্ভর করে নিচের থেকে নিঃসৃত উষ্ণ তরল এবং ওপরে সমুদ্রের জলে অক্সিজেনের মাত্রার ওপর।’

বিশেষ করে এখানে অসাধারণ সব টিউবওয়ার্মের খোঁজ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ধারণা করা হচ্ছে গভীর সাগরের এ প্রাণীরা আগ্নেয় তরলের মাধ্যমে সাগরপৃষ্ঠের নিচে ভ্রমণ করে নতুন বসতি সৃষ্টির জন্য।

এটি ব্যাখ্যা করে, কেন এসব প্রাণীর এত অল্পসংখ্যক কম বয়স্ক সদস্যকে গভীর আগ্নেয় ফাটলের চারপাশে জড়ো হতে দেখা যায়। বেশিরভাগই পৃষ্ঠের নিচে বেড়ে উঠতে থাকে। বিজ্ঞানীদের মনে এ ধরনের একটা সন্দেহ মাথাচাড়া দিতেই পরীক্ষা করার উদ্যোগ নেন।

এ জন্য মধ্য আমেরিকার পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার সাগরের আড়াই হাজার মিটার গভীরে সমুদ্রের তলটির একটি ছোট বর্গক্ষেত্রের পরিমাণ এলাকা পরিষ্কার করতে সাবাস্টিয়ান নামের একটি দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় এমন যান পাঠানো হয়। তারপর ওই নব্য প্রাণহীন জায়গাটির ওপর একটি তারের জালির বাক্স আটকে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

কয়েক দিন পরে যখন বাক্সটি সেখান থেকে সরিয়ে ফেলা হয় গবেষকেরা আবিষ্কার করেন নতুন প্রাণী সেখানে আস্তানা গেড়েছে। তার মানে এগুলো এসেছে সমুদ্রতলের নিচের বিভিন্ন ফাটল থেকে।

এই অনুসন্ধানের বিস্তৃত ফলাফল আগামী মাসগুলিতে প্রকাশিত হবে। কিন্তু গবেষকেরা যা বলছেন তা যদি সত্য হয়, তাহলে ভবিষ্যতে গভীর-সমুদ্র খনির খনন এই নতুন পাওয়া বাস্তুসংস্থানের ওপর যে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে তাতে সন্দেহ নেই।

শ্মিডট ওশান ইনস্টিটিউট অভিযানগুলোর নতুন আবিষ্কারগুলি আমাদের সমুদ্রকে সম্পূর্ণরূপে অনুসন্ধানের প্রয়োজনীয়তা আরও পরিষ্কারভাবে ফুটিয়ে তুলছে। কারণ তাহলে আমরা জানতে পারব গভীর সমুদ্রে আসলে কী আছে।’ বলেন প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি এবং সহপ্রতিষ্ঠাতা ওয়েন্ডি শ্মিডট।

‘নতুন প্রাণী ও জায়গার আবিষ্কার এবং এখন একটি সম্পূর্ণ নতুন বাস্তুসংস্থানের সন্ধান লাভ আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে মহাসাগরের আরও কতটা আবিষ্কার করা বাকি আমাদের। আর আমরা যা এখনো জানি না বা বুঝতে পারিনি তা রক্ষা করা কতটা গুরুত্বপূর্ণ।’

 


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top