ঢাকা শুক্রবার, ১২ই জুলাই ২০২৪, ২৯শে আষাঢ় ১৪৩১


যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৪০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার রেকর্ড


প্রকাশিত:
২০ জুলাই ২০২২ ০৯:৫৪

আপডেট:
১২ জুলাই ২০২৪ ১৯:০৪

 

যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে গতকাল মঙ্গলবার সর্বোচ্চ ৪০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। দেশটির জাতীয় আবহাওয়া সংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে। দাবদাহের কারণে এরই মধ্যে বিমানবন্দরের রানওয়ে এবং রেললাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাপমাত্রা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এদিকে দক্ষিণ-পশ্চিম ইউরোপে চলমান দাবদাহ ক্রমেই উত্তর-পূর্ব ইউরোপের বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস ও জার্মানিতে ছড়িয়ে পড়ছে।

২০১৯ সালে কেমব্রিজে সর্বোচ্চ ৩৮.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল। গতকাল মঙ্গলবার ভেঙে যায় সেই রেকর্ড। যুক্তরাজ্যের দক্ষিণাঞ্চলের গেটউইক বিমানবন্দরের পার্শ্ববর্তী চার্লউড এলাকায় গতকাল দুপুরে ৩৯.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। এর কিছু সময় পর হিথ্রোতে সর্বোচ্চ ৪০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়। অথচ দেশটিতে সাধারণত জুলাই মাসে দিনের গড় তাপমাত্রা ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং রাতের গড় তাপমাত্রা ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

চরম তাপমাত্রার কারণে প্রধান প্রধান পরিবহন ব্যবস্থা চালিয়ে নিতে হিমশিম খেতে পারে যুক্তরাজ্য। নজিরবিহীন তাপমাত্রার কারণে এরই মধ্যে দেশটিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। সাঁতার কাটতে গিয়ে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে, গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশের পর জনসাধারণকে খোলা পানিতে সাঁতার কাটতে বারণ করা হয়েছে।

দেশটির পরিবহনমন্ত্রী গ্র্যান্ট শ্যাপস বলেন, 'অন্তত দুটি বিমানবন্দরের রানওয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার লক্ষণ দেখা দিয়েছে এবং কিছু রেললাইন বেঁকে গেছে। পরিবহনব্যবস্থায় যথেষ্ট বিশৃঙ্খলা দেখা যাচ্ছে। আমাদের দেশে এত তাপমাত্রার কথা বিবেচনা করে অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়নি। '

গত সোমবার যুক্তরাজ্যের রাস্তাঘাটে সাধারণ সময়ের মতো যানজট ছিল না। রেললাইন বেঁকে গেছে―এমন ভয়ের কারণে ধীরে ধীরে চলেছে ট্রেন। দেশটির ব্যস্ততম লন্ডন কিংস ক্রম রেলস্টেশন গতকাল মঙ্গলবার ছিল ফাঁকা। তীব্র গরমের কারণে ভ্রমণ থেকে মানুষকে বিরত রাখার আদেশ জারি করতে যাচ্ছে দেশটির রেল পরিবহনের ব্যবস্থাপনা সংস্থা নেটওয়ার্ক রেল।

এ ছাড়া গত সোমবার রানওয়েতে ত্রুটি মেলায় লন্ডনের লুটন বিমানবন্দরে ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, বিমানবন্দরের রানওয়ে আংশিক গলে গেছে।

এদিকে দক্ষিণ-পশ্চিম ইউরোপের পর্তুগাল, ফ্রান্স ও স্পেনে দাবদাহ অব্যাহত রয়েছে এবং দাবানল নেভাতে হিমশিম খাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। ক্রমেই উত্তর-পূর্ব ইউরোপের বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস ও জার্মানিতে ছড়িয়ে পড়ছে এই দাবদাহ। ১৮৮৭ সালের পর আয়ারল্যান্ডে এবারই সর্বাধিক ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়ানোর আশঙ্কা করছেন আবহাওয়াবিদরা। আর প্রতিবেশী নেদারল্যান্ডসে ৩৫.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। গতকাল দেশটিতে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার পূর্বাভাস দেওয়া হয়। এ ছাড়া প্রতিবেশী বেলজিয়ামে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রম করতে পারে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়।

সম্প্রতি দক্ষিণ-পশ্চিম ইউরোপে দাবদাহের সঙ্গে সঙ্গে দাবানল ছড়িয়ে পড়ে। ইউরোপীয় কমিশনের গবেষকরা বলছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রায় অর্ধেক (৪৬ শতাংশ) অঞ্চল খরার ঝুঁকিতে আছে।

এদিকে ফ্রান্সের বেশ কয়েকটি শহরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। গত সোমবার নঁতে শহরে সর্বোচ্চ ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। এর আগে ১৯৪৯ সালে সর্বোচ্চ ৪০.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল এই শহরে। এদিকে ব্রাস্ত শহরে সর্বোচ্চ ৩৯.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে, যা আগের রেকর্ডের চেয়ে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি। রাতের তাপমাত্রাও বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। গত সোমবার দিবাগত রাত ৩টায় (মঙ্গলবার) লো হাগ এলাকায় তাপমাত্রা ছিল ৩২.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দেশটিতে ১৯ হাজার হেক্টর বনভূমি আগুনে পুড়ে গেছে এবং প্রায় ৩৭ হাজার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এদিকে বিদ্বেষমূলক কর্মকাণ্ডের কারণে লাঁদিরাস এলাকায় দাবানল সৃষ্টির অভিযোগে সন্দেহভাজন হিসেবে গত সোমবার এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এসবের পাশাপাশি অত্যধিক গরমের কারণে স্পেনে ৫১০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যুর খবর দিয়েছে দেশটির কার্লোস থ্রি হেলথ ইনস্টিটিউট। দাবানলে দেশটিতে সাড়ে চার হাজার হেক্টর বনভূমি পুড়ে গেছে। পার্শ্ববর্তী পর্তুগালে দাবানলে পুড়েছে ১৫ হাজার হেক্টর বনভূমি।


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top