ঢাকা সোমবার, ৬ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫শে মাঘ ১৪২৯


রাশিয়ার ইয়াকুশা অঞ্চলের ওইমিয়াকন গ্রামটিতে শীতের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা (-৬৭) ডিগ্রী সেলসিয়াস


প্রকাশিত:
৪ অক্টোবর ২০১৯ ২১:১৭

আপডেট:
৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২:৪৯

ছবি: ন্যাশনাল জিওগ্রাফী

সত্যিকারের শীত দেখতে চান তো রাশিয়ার ইয়াকুশা অঞ্চলের ওইমিয়াকন গ্রামটিতে চলুন৷ গত বছর অর্থ্যাৎ২০১৮ সালের ১৬ই জানুয়ারিতে সেখানে পারদ নেমেছিল মাইনাস ৬৭ ডিগ্রিতে৷

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনেই দেখানো হয়েছিলো, ওইমিয়াকন গ্রামে কিভাবে থার্মোমিটারের সব দাগ ছাড়িয়ে অতলে চলে যাচ্ছে – থার্মোমিটারেরই বা দোষ কি, তার মাপার ক্ষমতা যে মাইনাস ৫০ ডিগ্রিতেই শেষ৷

ভাবুন, এ এমন শীত যে, ইয়াকুশাতেও সমস্ত স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে; পুলিশ বাবা-মায়েদের বলেছে, ছেলেপিলেদের বাড়ির ভিতরে রাখতে৷ তবে যে শীতে থার্মোমিটার জমে যায়, সে শীতে কি আর পাড়ার বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে খেলতে যাওয়া যাবে?

সপ্তাহান্তেই তো ইয়াকুশায় দু'জন মানুষ তাদের গাড়ি খারাপ হয়ে যাওয়ার দরুণ পায়ে হেঁটে গ্রামে ফিরছিলেন – কিন্তু পৌঁছতে পারেননি৷ তার আগেই শীতে ‘জমে গিয়ে' প্রাণ হারিয়েছেন৷ আবার এ-ও সত্যি যে, ওই দু'জনের সঙ্গে যে আরো তিনজন ছিলেন, আরো বেশি গরম জামাকাপড় পরা থাকায়, তাঁরা প্রাণে বেঁচেছেন।

এরকম প্রচণ্ড ঠান্ডা পড়লে স্থানীয়রা আশ্রয়শিবিরে চলে যান৷ স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়৷ রাস্তায় হঠাৎ দু’ একজনকে চোখে পড়ে, তারা হয়ত সেলফি তোলার জন্য বের হন, অর্থাৎ চোখের পাতা জমে কেমন হয় সেটার ছবি তোলেন।

শীতে চোখের পাপড়ি জমে যাওয়া সেলফি

 

প্রত্যন্ত গ্রাম ওইমিয়াকন সবসময়ই বরফে ঢাকা থাকে৷ কিন্তু শীতকালে ভয়াবহ ঠান্ডা পড়ে সেখানে৷ এই গ্রামে থাকেন প্রায় ৫০০ জন মানুষ৷ গ্রীষ্মের সময়ে আগে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকত ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি, ২০১০ সালে সেই তাপমাত্রা পৌঁছেছিল ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে৷

এখানকার সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ডটটি ছিল ১৯৩৩ সালে, মাইনাস ৬৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস৷ মানুষের বসতি আছে এমন স্থানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড এটি৷ নাসা থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড অ্যান্টার্কটিকায়, মাইনাস ৯০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে৷

রাজধানী মস্কো থেকে প্রায় ৩,৩০০ মাইল পূর্বে ইয়াকুশিয়ায় লাখ দশেক মানুষের বাস ও তারা সবাই সাইবেরিয়ার শীতে অভ্যস্ত৷

 


বিষয়: রাশিয়া Russia



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top