ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ২০শে জানুয়ারী ২০২২, ৮ই মাঘ ১৪২৮


কালভার্ট আছে রাস্তা নেই


প্রকাশিত:
১৪ জানুয়ারী ২০২০ ১৪:২৯

আপডেট:
২০ জানুয়ারী ২০২২ ০৮:৪৪

ফাইল ছবি

পরিবেশ টিভি: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বিল সূর্য শাখা নদীর ওপর নির্মিত কালভার্ট স্থানীয় লোকজনের কোনো কাজে আসছে না। বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদ থেকে গত বছর এই শাখা নদীর ওপর কালভার্টটি নির্মাণ করা হয়। কিন্তু এক বছর পেরিয়ে গেলেও এর দুপাশে সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়নি। ফলে এলাকাবাসীর চলাচলে দুর্ভোগ রয়েই গেছে।

উপজেলার সৈয়দপুর পাঙ্গাসী, মাটিকাটা পাঙ্গাসী, চক খাদুলী ও বড় পাঙ্গাসী গ্রামের নারী-পুরুষেরা এই খাল পার হয়ে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে থাকেন। স্থানীয় ভুক্তভোগী জিল্লুর রহমান, রহিজ উদ্দিন, বাবলু প্রামাণিক ও আব্দুর রহিম জানান, চলনবিল অধ্যুষিত বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের অবস্থান নিচু এলাকায় হওয়ায় বছরের ৬ মাস সেখানে পানিতে ডুবে থাকে। এ সময় নৌকায় তাদের চলাচলের একমাত্র বাহন হিসেবে বিবেচিত।

জানুয়ারি মাস থেকে জুন মাস পর্যন্ত সময়ে তারা পায়ে হেঁটে যাতায়াত করে থাকেন। বিল সূর্য নদীর এই শাখা খালটি তাদের শুকনো মৌসুমে চলাচলের বড় অন্তরায়। এলাকাবাসী এই খালের ওপর একটি সড়ক সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছে বহুদিন ধরে। কিন্তু সে দাবি আজও পূরণ হয়নি। বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদ উল্লিখিত গ্রামের লোকজনের চলাচলের সুবিধার্থে এই খালের ওপর গত বছর একটি কালভার্ট নির্মাণ করেন।

কিন্তু এর দুপাশে সংযোগ সড়ক নির্মাণ না করায় এটি লোকজনের কোনো কাজে আসছে না। লোকজনকে এই শাখা খাল পেরিয়ে বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়ন সদর, লাহিড়ী মোহনপুর বাজার, রেলওয়ে স্টেশন ও উল্লাপাড়া উপজেলা সদরে প্রতিদিন যাতায়াত করতে হয়।

বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ন কবির লিটন জনদুর্ভোগের কথা স্বীকার করে জানান, বিল সূর্য নদীর শাখা খালের ওপর ইউনিয়ন পরিষদের তহবিল থেকে একটি কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে। গেল বছর এটি নির্মাণকাজ শেষ হতে না হতেই বন্যার পানি চলে আসে। ফলে সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। এ বছর খরা মৌসুমে এই কালভার্টের দুপাশে সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে।


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top