ঢাকা শুক্রবার, ১২ই জুলাই ২০২৪, ২৯শে আষাঢ় ১৪৩১


মানিকগঞ্জে রাসেল ভাইপার আতঙ্ক, ৩ মাসে ৫ জনের মৃত্যু


প্রকাশিত:
১৯ জুন ২০২৪ ২১:২৫

আপডেট:
১২ জুলাই ২০২৪ ১৯:০৫

একের পর এক বিষধর রাসেল ভাইপার সাপের দেখা মেলায় আতঙ্কে দিন পার করছেন মানিকগঞ্জের হরিরামপুরের চরাঞ্চলের কৃষকরা। ফসলের জমিতে সাপের আনাগোনা বেড়ে যাওয়ায় ফসল ও গবাদি পশুর জন্য ঘাস সংগ্রহ করতে পারছেন না তারা। পদ্মার তীরবর্তী ও চরাঞ্চলে বসবাসকারীরা রয়েছেন বেশি বিপদে। গত ৩ মাসে চরাঞ্চলে সাপের কামড়ে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, হরিরামপুরের লেছড়াগঞ্জ ইউনিয়নের সেলিমপুর সংলগ্ন জেগে ওঠা কাঞ্চনপুর ও ফরিদপুর সদর উপজেলার চরে শতাধিক কৃষক বর্গা চাষ করেন। এই চরে ভুট্টা, বাদাম, তিল, আমন ও আউশ ধানের চাষ করা হয়। কিন্তু ফসল তোলার সময় হয়ে গেলেও কৃষকরা মাঠে যেতে পারছেন না সাপের ভয়ে। এমন কি ঘরের গবাদি পশুর জন্যও ঘাস সংগ্রহ করা যাচ্ছে না।

১৯ জুন, বুধবার সকালে কাঞ্চনপুরের চরের জমিতে তিল সংগ্রহ করতে গিয়ে রাসেল ভাইপার দেখতে পান এক কৃষক। এতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে কাজ ফেলে চলে যান মাঠের অন্যান্য কৃষকরা।

সেলিমপুর এলাকার কৃষক আব্দুল মজিদ বলেন, মঙ্গলবার কাঞ্চনপুর চরে এক কৃষক তিল কেটে রাখেন। পরে আঁটি বাঁধা সে তিল তুলতে গিয়ে দেখতে পান রাসেল ভাইপার সাপ ফোঁস তুলে আছে। এ রকম ঘটনা এখানে প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে।

শিকারপুরের আরেক কৃষক সায়েম হোসেন জানান তার জমি থেকে ফসল তোলার সময় শ্রমিকরা রাসেল ভাইপার সাপ দেখতে পান। পরে তাকে মেরে ফেলা হয়। এর কয়েকদিন আগে আজিমনগরের পশ্চিমচরে আরও একটি সাপকে মেরে ফেলা হয়।

এ বিষয়ে লেছড়াগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, এই ইউনিয়নে গত মার্চে রাসেল ভাইপারের কামড়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ফরিদপুর জেলা সংলগ্ন পদ্মার চর এলাকায় কয়েকজন এই বিষধর সাপের আক্রমণের শিকার হয়েছেন। তারা ফরিদপুরে চিকিৎসা নিয়েছেন।

হরিরামপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তৌহিদুজ্জামান খান বলেন, হরিরামপুরের চরাঞ্চলে রাসেল ভাইপার সাপের উপদ্রবের কথা শুনেছি। কৃষকদের সতর্কতার সঙ্গে ধান কাটার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

হরিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শাহরিয়ার রহমান বলেন, বিষধর রাসেল ভাইপার সাপ নিয়ে চরাঞ্চলের কৃষকদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে আমরা কাজ শুরু করেছি। কৃষকদের বিশেষ জুতার (গামবুট) ব্যবস্থা করারও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top