ঢাকা শুক্রবার, ৭ই অক্টোবর ২০২২, ২৩শে আশ্বিন ১৪২৯

বৃদ্ধি হয়েছে সুন্দরবন ভ্রমণের খরচ


প্রকাশিত:
৯ মার্চ ২০২২ ২৩:৪৪

আপডেট:
৭ অক্টোবর ২০২২ ১৮:২৮

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, বাজারদর ঊর্ধ্বমুখী হওয়া, পর্যটন খাতের মাঝপথে দ্বিগুণ পরিমাণ রাজস্ব বৃদ্ধি এবং কয়েকটি ক্ষেত্রে নতুন করে করারোপ করার কারণে সুন্দরবনের পর্যটন শিল্পের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এদিকে সুন্দরবন ভ্রমণে রাজস্ব বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব সুন্দরবন।

বন বিভাগের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন সূত্রে জানা যায়, প্রমোদ ভ্রমণে সুন্দরবনে প্রবেশের জন্য হেলিকপ্টার ব্যবহার করলে বন বিভাগে নিবন্ধিত হেলিকপ্টারের জন্য ২০ হাজার ও অনিবন্ধিতদের জন্য ৫০ হাজার টাকা ফি দিতে হয়। এছাড়া ১০০ ফুটের ঊর্ধ্বের সাইজের লঞ্চের ক্ষেত্রে নিবন্ধিত ১ হাজার ৫০০ টাকা ও অনিবন্ধিতদের জন্য ৬ হাজার টাকা, ৫০ থেকে ১০০ ফুট সাইজের লঞ্চ নিবন্ধিত ১ হাজার ২০০ ও অনিবন্ধিত সাড়ে ৪ হাজার টাকা, ৫০ ফুটের কম সাইজের লঞ্চ নিবন্ধিত ৭৫০ টাকা ও অনিবন্ধিত ৩ হাজার টাকা, দেশি নৌকা নিবন্ধিত ১৫০ টাকা ও অনিবন্ধিত ৩০০ টাকা, স্পিড বোট নিবন্ধিত ৩ হাজার ও অনিবন্ধিত ৬ হাজার টাকা এবং জালিবোট (টুরিস্ট বোট) নিবন্ধিত ৩৫০ টাকা ও অনিবন্ধিতদের জন্য ১ হাজার ৫০০ টাকা করা হয়েছে। এসব নৌযানের আগের হার ছিল যথাক্রমে ১ হাজার ও ৪ হাজার টাকা, ৮০০ ও ৩ হাজার টাকা, ৫০০ ও ২ হাজার টাকা, ১০০ ও ২০০ টাকা, ২ হাজার ও ৪ হাজার টাকা এবং ২০০ টাকা ও ৪০০ টাকা। এছাড়া এক দিনের বেশি অবস্থানের জন্য লঞ্চপ্রতি দৈনিক নিবন্ধিত ৬০০ ও অনিবন্ধিতদের ১ হাজার টাকা ফি দিতে হবে। এ হার আগে ছিল ৩০০ ও ৫০০ টাকা।

 

পর্যটকদের অভয়ারণ্য ব্যতীত সমগ্র বনে ভ্রমণে প্রতি জনের প্রতিদিন দেশি ১৫০ টাকা ও বিদেশি ২ হাজার টাকা ফি হার ধার্য করা হয়েছে। পূর্বে এ হার ছিল ৭০ টাকা ও ১ হাজার টাকা। অপ্রাপ্ত বয়স্ক ও পরিচয়পত্রধারী ছাত্রছাত্রী প্রতিদিন প্রতি জনের ফি দেশি ৩০ টাকা এবং বিদেশি ৩০০ টাকা। আগে শুধুমাত্র দেশি ছাত্রছাত্রীদের জন্য এ ফিসের হার ছিল ২০ টাকা। বনের করমজল ও তার সমমানের এলাকায় দেশি ও বিদেশিদের ফি ধার্য করা হয়েছে ৪০ টাকা ও ৫০০ টাকা; যা আগে ছিল ২০ টাকা ও ৩০০ টাকা। দেশি শিক্ষার্থীদের জন্যে ফি ২০ টাকা রেখে বিদেশিদের ওপর নতুন করে ৫০০ টাকা বসানো হয়েছে। দেশি গবেষকদের আগে দৈনিক ভ্রমণ ফি ছিল ৪০ টাকা, এখন হয়েছে ৫০ টাকা।

এছাড়া বিদেশি গবেষকদের জন্য ৫০০ টাকা বাড়িয়ে ৮০০ টাকা করা হয়েছে। সুন্দরবনের কটকা, কচিখালী, নীলকমল, হিরণপয়েন্ট, পুষ্পকাঠি, নোটাবেকী, মান্দারবাড়িয়া, হলদেবুনিয়াসহ সকল অভয়ারণ্যে বেড়াতে দেশি ও বিদেশিদের ফি দুই গুণ করা হয়েছে। একইভাবে অনিবন্ধিত লঞ্চ ক্রু, গাইড ও নিরাপত্তা গাইডের জন্য রাজস্ব ৭০, ৫০০ ও ৩০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৫০, ৭৫০ ও ৫০০ টাকা। বনে ক্যামেরা বহন করতে আগে দেশি ও বিদেশিদের দিতে হতো ২০০ ও ৩০০ টাকা, এখন নতুন হার হয়েছে ৩০০ ও ৫০০ টাকা। প্রতি বছর একবার বনের দুবলার চরে তিন দিনের রাস পূর্ণিমা উপলক্ষে তীর্থ যাত্রার ফিও বাড়ানো হয়েছে। এ ফি বাড়িয়ে তা দেড়গুণ করা হয়েছে।

 

বনের কটকা, কচিখালী ও নীলকমলে রেস্ট হাউজে অবস্থান করা যায়। এবার অফিসিয়ালি সেগুলোর ভাড়া ঘোষণা করা হয়েছে। কটকায় দেশিদের জন্য দৈনিক প্রতি কক্ষের ভাড়া ২ হাজার ও সম্পূর্ণটার ৪ হাজার টাকা। এছাড়া বিদেশিদের জন্য ৫ ও ১০ হাজার টাকা। কচিখালী দেশিদের জন্য কক্ষ ৩ হাজার ও সম্পূর্ণ ১০ হাজার টাকা এবং বিদেশিদের জন্য ৫ ও ১৫ হাজার টাকা। নীলকমলে দেশিদের জন্য প্রতি কক্ষ ৩ হাজার ও সম্পূর্ণ ১২ হাজার টাকা এবং বিদেশিদের জন্য ৫ ও ২০ হাজার টাকা।


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top