ঢাকা মঙ্গলবার, ২১শে মে ২০২৪, ৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১


উত্তাল সাগর গিলে খাচ্ছে মেরিন ড্রাইভ-ঝাউবীথি


প্রকাশিত:
৫ আগস্ট ২০২৩ ১৮:২৫

আপডেট:
২১ মে ২০২৪ ১৭:০৫


একদিকে নিম্নচাপ, অন্যদিকে শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমা। এ দুয়ের প্রভাবে গত কয়েক দিন ধরে উত্তাল রয়েছে সাগর। স্বাভাবিকের চেয়ে জোয়ারের পানি কয়েক ফুট উচ্চতায় আছড়ে পড়ছে তীরে। ফলে উপকূলে দেখা দিয়েছে জলোচ্ছ্বাস। এতে তলিয়ে গেছে অনেক নিম্নাঞ্চল। সাগরের ঢেউয়ের তোড়ে পর্যটনের অনিন্দ সৌন্দর্য মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ অংশে ডজনাধিক স্পটে তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন মেরামতে হাত দেওয়া হলেও পরবর্তী জোয়ারে আবারও ভাঙনের কবলে পড়ছে সড়কের কিনারা।

৩ আগস্ট, বৃহস্পতিবার রাত ও ৪ আগস্ট শুক্রবার সকালের জোয়ারের বাড়ন্ত পানির তীব্র ঢেউ তলিয়ে নিয়ে গেছে কয়েক কিলোমিটার ঝাউবীথির গাছ। নেতিয়ে গেছে মেরিন ড্রাইভ ও সৈকতের ভাঙন রোধে বসানো জিও ব্যাগ। এ পরিস্থিতিতে সৈকতের ডায়াবেটিক পয়েন্ট হতে কবিতা চত্বর, লাবণী, সুগন্ধা, কলাতলী, দরিয়ানগর, হিমছড়ি, পেঁচারদ্বীপ, ইনানী, পাথুয়ার টেক, টেকনাফ সৈকতের তীরে ভাঙন আরো তীব্র হবার আশঙ্কা করছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা। এখনই ভাঙন রোধে প্রতিরোধ গড়া না হলে, মেরিন ড্রাইভ দিয়ে টেকনাফ ও সমুদ্র উপকূলের সহজ সড়কযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। জোয়ারের চাপে জেলার বিভিন্ন উপকূলাঞ্চলে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ঝুঁকির মুখে পড়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে উপকূলের বিপুলসংখ্যক মানুষ। ভেসে গেছে মাছের ঘেরও।

কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের কক্সবাজার সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা সমীর রঞ্জন সাহা জানান, বৃহস্পতিবার রাত ও শুক্রবার দিনের জোয়ারে অস্বাভাবিক ভাবে বাড়ে সাগরের পানি। অন্য সময়ের চেয়ে ঢেউ কয়েক ফুট উঁচু হয়ে তীরে আছড়ে পড়ে। রেঞ্জের কস্তুরাঘাট, কলাতলী, হিমছড়ি বিটের আওতাধীন সৈকতের ডায়বেটিক পয়েন্ট, কবিতা চত্বর, লাবণী, দরিয়ানগর, হিমছড়িসহ মেরিন ড্রাইভ সৈকতের বিভিন্ন স্থানে বিপুল পরিমাণ ঝাউগাছ উপড়ে পড়ে পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব এলাকায় সৈকতের ভাঙন নিয়ন্ত্রণে দেওয়া বালিভর্তি জিও ব্যাগগুলো নেতিয়ে ঝুঁকিতে পড়েছে সৈকততীরের নানা স্থাপনা।

জানা যায় কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভে সাগরের ঢেউয়ের তোড়ে টেকনাফ অংশে ভাঙন ধরেছে। বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) সকালের জোয়ারে টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের পশ্চিম মুন্ডার ডেইল এলাকার প্রায় অর্ধশত মিটার সড়ক ঢেউয়ের তোড়ে ভেঙে গেছে। এর আগে গত দুই দিনের বাড়ন্ত জোয়ারের পানিতে টেকনাফের বাহারছড়া, হাদুরছড়া, দক্ষিণ মুন্ডার ডেইল এলাকায় একাধিক স্পটে মেরিন ড্রাইভ ভাঙনের কবলে পড়ে। এতে পুরো সড়ক তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। সাগরে ঢেউয়ের উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় বড় বড় ঢেউ আছড়ে পড়ে জিও ব্যাগ টপকে পানি সড়কে উঠেছে। যার কারণে সড়কে ভাঙন ধরেছে।

কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়ীর পশ্চিম বেড়িবাঁধে ঢেউয়ের আঘাতে নতুন করে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ঘরবাড়ি ও জিওব্যাগ তলিয়ে গেছে। হুমকির মুখে পড়েছে আমন ধানের চাষাবাদ। ইউনিয়নের নয়াপাড়া, সাইটপাড়া, পশ্চিম তিতা মাঝির পাড়া, মিয়াজীর পাড়া, বলির পাড়াসহ বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ বেড়িবাঁধের পাশে জোয়ারের পানির সঙ্গে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে বাস করছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড বেড়িবাঁধে জিও ব্যাগ দিয়ে বাঁধ সংস্কার করায় অল্প জোয়ারেই ভাঙনের কবলে পড়ে বলে জানিয়েছেন মাতারবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হায়দার।

মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের এমপি আশেক উল্লাহ রফিক বলেন, মাতারবাড়ি ও ধলঘাটায় ১৭ দশমিক ৬৩ কি.মি. সুপার ডাইক বেড়িবাঁধের কাজ শীঘ্রই শুরু হবে। উপকূলীয় এলাকাবাসীকে শতভাগ সুরক্ষা দিতে কাজ করছে সরকার।

অপরদিকে, কুতুবদিয়ার উত্তর ধুরুং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল হালিম সিকদার বলেন, সাগরে বাড়ন্ত পানির তোড়ে ইউনিয়নের নিয়ারাকাটা, কায়সারপাড়া, কৈয়ারবিল ইউনিয়নের মলমচরসহ আশপাশের বেড়িবাঁধ উপচে পানি ঢুকেছে লোকালয়ে। পাউবোকে বিষয়টি জানানো হলে, ভরাকাটাল শেষ হলেই দ্রুত মেরামতের আশ্বাস দিয়েছে তারা।

এদিকে, সতর্কসঙ্কেত ও সাগর উত্তাল থাকায় কক্সবাজারে অবস্থান করা পর্যটকদের সমুদ্রস্নান কিংবা পানিতে নামার ক্ষেত্রে সতর্ক করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ ও সি সেইভ লাইফ গার্ড।


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top