ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭শে অক্টোবর ২০২০, ১৩ই কার্তিক ১৪২৭


সবজি চাষে ঝুঁকছেন কৃষকেরা


প্রকাশিত:
২৬ নভেম্বর ২০১৯ ১৯:২১

আপডেট:
২৭ অক্টোবর ২০২০ ২০:১৩

ফাইল ছবি

পরিবেশ টিভি: ‘সময়মতো পানি দাও, সার দাও আরও কত ঝামেলা, তাই দুই বিঘা জমিতে আমন ধান আবাদ না করে সবজি চাষ করছি। এতে ঝামেলা কম, লাভও বেশি।’ কথাগুলো বলছিলেন নওগাঁর সদর উপজেলার শালেবাজ গ্রামের চাষি আবদুল মজিদ।

শুধু মজিদই নন, গত কয়েক মৌসুমে ধান চাষ করে লোকসান গোনার পর অনেক চাষিই এখন ধান চাষ না করে সবজি চাষের দিকে ঝুঁকছেন। নওগাঁ সদর, বদলগাছী, মান্দা, ধামইরহাট ও মহাদেবপুর উপজেলায় এ বছর ব্যাপক হারে সবজি চাষ হয়েছে। মৌসুমের শুরুতে বাজারে প্রায় সব ধরনের সবজির দাম ভালো পাওয়ায় খুশি চাষিরা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয় থেকে জানা গেছে, চলতি রবি মৌসুমে জেলায় ৮ হাজার ৭১০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরনের সবজির আবাদ হয়েছে। গত বছর জেলায় সবজি আবাদ হয়েছিল ৭ হাজার ৮৬৫ হেক্টর জমিতে। এ বছর নওগাঁয় সবজির আবাদ বেড়েছে ৮৪৫ হেক্টর জমিতে। জেলায় এ বছর আমন ধান আবাদ হয়েছে ১ লাখ ৯০ হাজার হেক্টর জমিতে, যেখানে গত বছর আবাদ হয়েছিল ১ লাখ ৯৫ হাজার হেক্টর জমিতে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নওগাঁর সদর উপজেলার বক্তারপুর, কীর্ত্তিপুর, তিলকপুর, বর্ষাইল ইউনিয়ন, বদলগাছীর বালুভরা, পাহাড়পুর, মিঠাপুর, বিলাশবাড়ি, কোলা, আধাইপুর ইউনিয়ন, মহাদেবপুরের সদর ইউনিয়ন, চেরাগপুর, রাইগা, চান্দাশ, উত্তরগ্রাম এলাকায় ধানের পাশাপাশি বিস্তীর্ণ জমিতে ব্যাপক হারে সবজির চাষ হয়েছে। এসব জমিতে ফুলকপি, বাঁধাকপি, করলা, মরিচ, বেগুন, টমেটোসহ বিভিন্ন ধরনের সবজির চাষ হয়েছে। অথচ দুই-তিন বছর আগেও এসব জমিতে সবজির চাষ এত হতো না।

চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৭ সালের পর থেকে বোরো ও আমন ধান আবাদ করে ন্যায্যমূল্যে না পাওয়ায় কৃষকদের ব্যাপক লোকসান গুনতে হয়েছে। ধান আবাদ করে লাভের মুখ দেখতে গিয়ে উল্টো অনেক কৃষক ঋণের জালে জড়িয়ে পড়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় কৃষকেরা ধান চাষে উৎসাহ হারিয়ে ফেলছেন। এই লোকসান থেকে বাঁচতে অনেক কৃষক আস্তে আস্তে সবজি চাষের দিকে ঝুঁকছেন। বিশেষ করে ক্ষুদ্র ও মাঝারি পর্যায়ের কৃষক যাঁরা সাধারণত নিজেরা শ্রম দিতে পারেন, এমন কৃষকেরা ধান চাষ ছেড়ে দিয়ে সবজি চাষের দিকে বেশি ঝুঁকছেন।

বক্তারপুর ইউনিয়নের চাকলা গ্রামের কৃষক শহিদুল ইসলাম বলেন, তাঁর চার বিঘা আবাদি জমে রয়েছে। সবজি চাষের জন্য এবার দেড় বিঘা জমিতে ধান চাষ করেননি। ওই দেড় বিঘা জমিতে তিনি শীতের আগাম শিম ও ফুলকপি চাষ করেছেন। অথচ বিগত বছরগুলোতে শহিদুল তাঁর চার বিঘা জমিতে ধান আবাদ করতেন।

শহিদুল বলেন, বাজারে এখন নতুন ধানের দাম মণপ্রতি সর্বোচ্চ ৭১০ টাকা। আড়াই বিঘা জমিতে খুব বেশি হলে ৫০ মণ ধান পাওয়া যাবে। ৫০ ধান বিক্রি করে আসবে ৩৫ হাজার ৫০০ টাকা। অথচ দেড় বিঘা জমিতে লাগানো শিম ও ফুল কপি বিক্রি করে তাঁর ৪০ হাজার টাকা এসেছে। আরও দুই-তিন মাস তিনি এই সবজি বিক্রি করতে পারবেন।

সদর উপজেলার পাহাড়পুর গ্রামের মিলটন সরদার বলেন, ধান চাষের চেয়ে সবজি চাষে খরচ কম, লাভ বেশি। ধানের দাম না পাওয়ায় এলাকার অনেক কৃষক ধান আবাদ ছেড়ে দিয়ে সবজি চাষে ঝুঁকছেন। ন্যায্যমূল্য না পেলে ধীরে ধীরে ধানের আবাদ আরও কমবে।

পাহাড়পুর গ্রামের খবির উদ্দিন নামের আরেক কৃষক বলেন, ‘গত বছরের চেয়ে এ বছর আমি বেশি জমিতে সবজি আবাদ করেছি। ইতিমধ্যে আমার খেতের ফুলকপি, বাঁধাকপি ও পালংশাক ওঠা শুরু করেছে। বাজারে দামও ভালো।’

সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা এ কে এম মফিদুল ইসলাম বলেন, নওগাঁ সদর উপজেলার মাটি সবজি চাষের জন্য খুবই উপযোগী। বিশেষ করে বর্ষাইল, বক্তবার, তিলকপুর ও কীর্ত্তিপুর এলাকায় ব্যাপক হারে সবজি চাষ হচ্ছে এবং বছর বছর সবজি চাষ বাড়ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের নওগাঁর উপপরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, সবজির আবাদ বাড়ার বিষয়টি খুবই ইতিবাচক। গত কয়েক মৌসুম ধরে ধানের দামটা অস্বাভাবিক কম ছিল। এ জন্য কৃষকেরা সবজির দিকে বেশি ঝুঁকছেন। কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের কম খরচে অধিক লাভ হয় এমন ফসল আবাদে উৎসাহিত করা হচ্ছে।
সূত্র: প্রথম আলো




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top