ঢাকা রবিবার, ২৩শে জুন ২০২৪, ১০ই আষাঢ় ১৪৩১


বিশ্বের ‘সবচেয়ে দামি’ মরিচের চাষ কুমিল্লায়


প্রকাশিত:
২৫ জুলাই ২০২৩ ২৩:৩০

আপডেট:
২৩ জুন ২০২৪ ০৮:৩২


মরিচের নাম চারাপিতা। বিশ্বের সবচেয়ে দামি মরিচ বলে আখ্যায়িত করা হয় একে। ওই মরিচ গাছ পরীক্ষামূলকভাবে লাগিয়েছেন কুমিল্লা নগরীর ঠাকুরপাড়ার বাসিন্দা আহমেদ জামিল সেলিম। তার ওই গাছে ফুল এসেছে। ধরা শুরু করেছে মরিচ। ছয় বছরের চেষ্টায় এ মরিচের বীজ থেকে চারা উৎপাদন করেন তিনি।

মরিচ চাষি আহমেদ জামিল সেলিমের দাবি, আন্তর্জাতিক বাজারে এ জাতের প্রতি কেজি গুঁড়া মরিচের দাম ২৬ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশি টাকায় ২৮ লাখের বেশি। এত দামি মরিচ ও গাছের ধরনের কথা শুনে কৌতুহলবশত অনেকেই তা দেখতে ওই বাড়িতে যাচ্ছেন।

আহমেদ জামিল সেলিম এর আগে ব্ল্যাক টমাটো, মেডজুল খেজুর, কোরিয়ান ভোজ্যতেল, সাওপেরিলা চাষ করে সফল হয়েছেন। তবে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করতে পারেননি এসবের কিছুই।

এ চারাপিতা মরিচ মূলত মসলা জাতীয়। আদিনিবাস পেরুতে। দুর্লভ হওয়ায় এর কথা অনেকের অজানা। তাই দেশে এ নিয়ে পড়াশোনারও তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায় না।

আহমেদ জামিল সেলিম বলেন, ‘ছয় বছর আগে ইন্টারনেটে জানলাম দামি মরিচ চারাপিতার ব্যাপারে। জন্মে পেরুতে। সেখান থেকে বীজ এনে লাগিয়ে সফল হইনি। পরে আমার এক বড় ভাইয়ের সহযোগিতা চাই। যুক্তরাষ্ট্রে তার কাছে বীজ পাঠিয়ে বলি তিনি যেন বপন করেন।’

‘বীজ লাগানোর এক মাস পর তিনি জানান, কয়েকটি চারা গজিয়েছে। তিনি সেগুলো পরিচর্যা করেন। সে গাছের মরিচের বীজ আমাকে পাঠান তিনি। আমি ৫০টি বীজ লাগানোর পরে সেখান থেকে পাঁচটি গাছ হয়। এর মধ্যে তিনটি গাছ কুমিল্লার বাসায় লাগিয়েছি। গাছগুলোকে শেডের নিচে রাখতে হয় এবং আলোর প্রয়োজন হয়।’

জামিল জানান, তিনি চান যেন দেশে এ মরিচ বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হয়। এতে দেশের কৃষি ও কৃষক সমৃদ্ধ হবে।

কৃষি ও পরিবেশ সংগঠক মতিন সৈকত বলেন, ‘আমাদের দেশের মাটি খুবই উর্বর। এখানে মাটির যত্ন নিলে সোনা মিলে। চারাপিতা মরিচ চাষ যদি বাণিজ্যিকভাবে সফল হয়, তাহলে কৃষকরা উপকৃত হবেন।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কুমিল্লার সদ্য সাবেক উপপরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, ‘আহমেদ জামিল সেলিম বিভিন্ন সময় নতুন ফসলের চাষ করেন। তার দাবি, তিনি বিশ্বের দামি মরিচ চারাপিতার চাষ করেছেন। তবে এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।’

 


বিষয়:



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top